بِسْمِ ٱللَّهِ ٱلرَّحْمَـٰنِ ٱلرَّحِيمِ - শুরু করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম করুণাময়, অতি দয়ালু।

ইসলামিক আলোচনাঃ

বিনামূল্যে ইসলামী কোর্স আপনাকে মৌলিক ইসলামিক জ্ঞান এবং মুসলিম বিশ্বাস শেখানোর জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। ইসলাম বিনামূল্যে অনলাইন পড়া, ইসলামের সত্য এবং সুন্দর শিক্ষা শিখতে।
ইসলাম শিখুন এবং আপনার নিজের ঘরের সান্ত্বনা থেকে ইসলাম অধ্যয়ন করুন।

This free Islamic course is designed to teach you basic Islamic Knowledge and Muslim beliefs. Study Islam online free, learn the true and beautiful teachings of Islam.
Learn Islam and study Islam from the comfort of your own homes.

Blogs: obaBD

Click to see our Blogs

Blog: Act Of Allah

Click to see our Blogs

নবীজী ﷺ আপনাকে মিস করতেন, আপনি কি উনাকে মিস করেন?

সীরাতে ইবনে হিশাম’ পড়ে কেঁদেছিলাম। আংটি পড়ে যাওয়ার অজুহাতে একজন সাহাবী রাসুল ﷺ এর কবরে দ্বিতীয়বার নেমেছিলেন। সর্বশেষ বিদায় নিয়েছিলেন তাঁর কাছ থেকে। এই ঘটনা পড়ে কেঁদেছিলাম।[ বিস্তারীত দেখুন → ]

ড. আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর (রহ)সার এর ৪টি নসীহত

. বিশুদ্ধভাবে তাওহীদ ও রিসালাতের উপর ঈমান আনুন। সাহাবায়ে কেরাম, তাবেয়ী ও তাবে-তাবেয়ীগণের আক্বীদা বা আহলুস সুন্নাহ ওয়াভ জামাতের আকীদা যা ইমাম আবু হানীফার (রহ) “ফিকহুল আকবার” ইমাম তাহাবী (রহ) “আকীদায়ে তাহাবীয়ে” ও অন্যান্য প্রাচীন ইমামগণের নির্ভরযোগ্য গ্রন্থসমূহে লিপিবদ্ধ রয়েছে সেই অনুসারে নিজেদের আকীদা গঠন করুন। পরবর্তি যুগের বিদ’আত ও বানোয়াট আকীদা বর্জন করুন। সাথে সাথে সকল প্রকার শিরক, কুফর, বিদ’আত ও ইলদ থেকে আত্মরক্ষা করুন।
২. সকল প্রকার হারাম উপার্জন পরিহার করুন। ফরজ ইবাদত বিশুদ্ধভাবে পালন করার সর্বাত্তক চেষ্টা করুন। সকল কবীরা গুনাহ ও হারাম বর্জন করুন। কোনো মানুষ অথবা প্রানীর হক্ব (অধিকার) নষ্ট করা বা ক্ষতি করা বিষবত পরিত্যাগ করুন।
৩. মনকে হিংসা, ঘৃনা, বিদ্বেষ, অহংকার, আত্মতৃপ্তি, জাগতিক, সম্মান, প্রতিপত্তি বা টাকা পয়সার লোভ থেকে যথাসম্ভব পবিত্র রাখার সর্বদা সতর্কতার সাথে চেষ্টা করুন। এজন্য সর্বদা আল্লাহর দরবারে তাওফীক চেয়ে কাতরভাবে দু’আ করুন। প্রয়োজন ছাড়া মানুষের সাথে হাসি তামাশা বা গল্প-গোযব যথাসম্ভব কম করুন।
৪. নফল ইবাদত বেশি বেশি পালনের চেষ্টা করুন। মানুষের সেবা, উপকার ও সাহায্য জাতীয় কাজ যথাসম্ভব বেশি করুন। নফল সালাত যথাসম্ভব আদায়ের চেষ্টা করুন। বিশেষত তাহাজ্জুত, ইশরাক ও মাগরিবের পরে কিছু নফল সালাত (আওয়াবীন নামে পরিচিত) সর্বদা পালন করুন।
নফল সিয়াম বেশি বেশি পালনের চেষ্টা করুন, বিশেষত প্রত্যেক সপ্তাহে সোম ও বৃহস্পতিবার, প্রত্যেক আরবি মাসের প্রথমে, শেষে এবং ১৩,১৪ ও ১৫ তারিখের সিয়াম নিয়মিত পালন করবেন। এছাড়া আরাফাতের দিনের সিয়াম ও আশুরার সিয়াম পালন করবেন।। নফল দান বেশি করার চেষ্টা করবেন। দান করতে সক্ষম না হলে মানুষের বেশি বেশি সেবা ও উপকার করবেন, যা আল্লাহর নিকট দান হিসাবে গণ্য হবে। সকলেই কুরআন মাজীদ তিলাওয়াত শিখে নিয়মিত কুরআন মাজীদ তিলাওয়াত করবেন, সাথে সাথে অর্থ বুঝার জন্য সাধ্যমত চেষ্টা করবেন। তাহাজ্জুদের পরে বা ফজরের পরে নিয়মিত কয়েক পৃষ্ঠা তিলাওয়াতের অভ্যাস বজায় রাখবেন।

Print Friendly, PDF & Email
Close Menu