بِسْمِ ٱللَّهِ ٱلرَّحْمَـٰنِ ٱلرَّحِيمِ - শুরু করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম করুণাময়, অতি দয়ালু।

সুন্নতে মুয়াক্কাদা জিন্দা করতে গিয়ে হারাম জিন্দা করছি নাত?

 

quranerpoth as sunnah site

সুন্নতে মুয়াক্কাদা জিন্দা করতে গিয়ে হারাম জিন্দা করছি নাত?

কুরআন আল্লাহর বাণী। এর তিলাওয়াত সরাসরি আল্লাহর সঙ্গে কথা বলার সমান।যা তিলাওয়াতে অধিক ছাওয়াব রয়েছে। কিন্তু আমরা কিভাবে কুরআনুল কারিম তিলাওয়াত করব? এর আদব কি? আল্লাহ কুরআনে বলেন…
وَرَتِّلِ الْقُرْآنَ تَرْتِيلًا
এবং কোরআন আবৃত্তি করুন সুবিন্যস্ত ভাবে ও স্পষ্টভাবে (তারতিলের সহিত)। [সুরা মুযযাম্মিল ৭৩:৪]

সহীহ বুখারী শরীফে (তাওহীদ) পরিচ্ছদঃ ৬৬/২৮.সুস্পষ্ট ও ধীরে কুরআন তিলাওয়াত করা। অধ্যায়ে আছে যে….
وَقَوْلِهِ تَعَالَى {وَرَتِّلِ الْقُرْاٰنَ تَرْتِيْلًا}وَقَوْلِهِ {وَقُرْاٰنًا فَرَقْنَاهُ لِتَقْرَأَه” عَلَى النَّاسِ عَلٰى مُكْثٍ} وَمَا يُكْرَهُ أَنْ يُهَذَّ كَهَذِّ الشِّعْرِ فِيْهَا يُفْرَقُ يُفَصَّلُ قَالَ ابْنُ عَبَّاسٍ {فَرَقْنَاه”} فَصَّلْنَاهُ.
এ সম্পর্কে আল্লাহর বাণীঃ
কুরআন তিলাওয়াত কর ধীরে ধীরে সুস্পষ্টভাবে। আল্লাহ্ তা‘আলা ইরশাদ করেনঃ আমি কুরআন অবতীর্ণ করেছি যাতে তুমি তা মানুষের নিকট পাঠ করতে পার ক্রমে ক্রমে। কবিতা পাঠের মতো দ্রুতগতিতে কুরআন পাঠ করা অপছন্দনীয়। আল্লাহর বাণী فِيْهَايُفْرَقُ ‘তাতে পৃথক করা হয়’ এর অর্থ স্পষ্ট করা হয়। ইবনু ‘আববাস রাযিয়াল্লাহু আনহু বলেছেন, আল্লাহর বাণী فَرَقْنَاهُ ‘আমরা পৃথক করেছি’ এর অর্থ আমরা স্পষ্ট করেছি।

আবূ ওয়ায়িল রহমতুল্লাহি আলাইহি সূত্রে ‘আবদুল্লাহ্ রাযিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত।  আবূ ওয়ায়িল রহমতুল্লাহি আলাইহি বলেন,
আমরা একদিন সকালে ‘আবদুল্লাহ্ রাযিয়াল্লাহু আনহু-এর কাছে গেলাম। একজন লোক বলল, গতকাল রাতে আমি মুফাস্সাল সূরাসমূহ পাঠ করেছি। এ কথা শুনে ‘আবদুল্লাহ্ রাযিয়াল্লাহু আনহু বললেন, এত শীঘ্র পাঠ করা যেন কবিতা পাঠের মতো; অথচ আমরা নাবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর পাঠ শুনেছি এবং তা আমার ভালভাবে মনে আছে। নাবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে যে সমস্ত সূরাহ পাঠ করতে আমি শুনেছি, তার সংখ্যা মুফাস্সাল হতে আঠারটি এবং ‘আলিফ-লাম হামিম’ হতে দু’টি। [সহীহ বুখারী (তাওহীদ) হাদিস নম্বরঃ ৫০৪৩ ]

حَدَّثَنَا قَتَادَةَ قَالَ سُئِلَ أَنَسٌ كَيْفَ كَانَتْ قِرَاءَةُ النَّبِيِّ صلى الله عليه وسلم فَقَالَ كَانَتْ مَدًّا ثُمَّ قَرَأَ بِسْمِ اللهِ الرَّحْمٰنِ الرَّحِيْمِ يَمُدُّ بِبِسْمِ اللهِ وَيَمُدُّ بِالرَّحْمَنِ وَيَمُدُّ بِالرَّحِيْمِ.
ক্বাতাদাহ রহমতুল্লাহি আলাইহি হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, আনাস রাযিয়াল্লাহু আনহু-কে নাবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর ‘কিরাআত’ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলো যে, নাবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর ‘কিরাআত’ কেমন ছিল? উত্তরে তিনি বললেন, কোন কোন ক্ষেত্রে নাবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম দীর্ঘ করতেন। এরপর তিনি ‘বিস্মিল্লা-হির রহমা-নির রহীম’ তিলাওয়াত করে শোনালেন এবং তিনি বললেন, নাবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম ‘বিস্মিল্লাহ্’’ ‘আর রহমান’, ‘আর রহীম’ পড়ার সময় দীর্ঘায়িত করতেন। [গ্রন্থঃ সহীহ বুখারী (তাওহীদ) হাদিস নম্বরঃ ৫০৪৬]

آدَمُ بْنُ أَبِيْ إِيَاسٍ حَدَّثَنَا شُعْبَةُ حَدَّثَنَا أَبُوْ إِيَاسٍ قَالَ سَمِعْتُ عَبْدَ اللهِ بْنَ مُغَفَّلٍ قَالَ رَأَيْتُ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم يَقْرَأُ وَهُوَ عَلَى نَاقَتِهِ أَوْ جَمَلِهِ وَهِيَ تَسِيْرُ بِهِ وَهُوَ يَقْرَأُ سُوْرَةَ الْفَتْحِ أَوْ مِنْ سُوْرَةِ الْفَتْحِ قِرَاءَةً لَيِّنَةً يَقْرَأُ وَهُوَ يُرَجِّعُ.
আবদুল্লাহ্ ইবনু
মুগাফফাল রাযিয়াল্লাহু আনহু বলেন, নাবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম উষ্ট্রির পিঠে অথবা উটের পিঠে আরোহিত অবস্থায় যখন উষ্ট্রটি চলছিল, তখন আমি তিলাওয়াত করতে দেখেছি। তিনি ‘সূরাহ ফাত্হ’ বা ‘সূরাহ ফাত্হ’র অংশ বিশেষ অত্যন্ত নরম এবং মধুর ছন্দোময় সুরে পাঠ করছিলেন। [গ্রন্থঃ সহীহ বুখারী (তাওহীদ) হাদিস নম্বরঃ ৫০৪৭]

আরো হাদীস দেখতে চাইলে,বুখারী শরীফে-এর (كتاب فضائل القرآن) ফাজায়ীলুল কুরআন অধ্যায়ে দেখুন
তারাবি নামাজ সুন্নতে মুয়াক্কাদা আর কুরআন ভুলপড়া হারাম। বাংলাদেশের ৯০% মসজিদে রমজান মাসের খতমে তারাবিহ হয় এবং খতমে তারাবিতে এত তারাতারি কুরআন তেলাওয়াত করাহয় যে, লাস্টের শব্দছারা আর কিচ্ছুই বুজাজায়না। 

সবার কাছে প্রশ্নহলো সুন্নতে মুয়াক্কাদা জিন্দা করতে গিয়ে হারাম জিন্দা করছি নাত?

লিখেছেনঃ মাহমুদ হাসান

Leave a Reply

Close Menu