بِسْمِ ٱللَّهِ ٱلرَّحْمَـٰنِ ٱلرَّحِيمِ - শুরু করছি আল্লাহর নামে যিনি পরম করুণাময়, অতি দয়ালু।
ঈমানের আরকান বা স্তম্ভসমূহ

ঈমানের আরকান বা স্তম্ভসমূহ

কিতাবুল ঈমান
ঈমানের আরকান বা স্তম্ভসমূহ

 

তুমি ঈমান আনবে আল্লাহর প্রতি, তাঁর ফেরেশতাগণ, তাঁর কিতাবসমূহ, তাঁর রাসূলগণ ও পরকালের প্রতি এবং ঈমান আনবে ভাগ্যের ভালোমন্দের প্রতি। এ ছয়টি বিষয় হলো ঈমানের আরকান।

ঈমানের আরকান বা স্তম্ভসমূহ

আল্লাহ তাআলা বলেন, آَمَنَ الرَّسُولُ بِمَا أُنْزِلَ إِلَيْهِ مِنْ رَبِّهِ وَالْمُؤْمِنُونَ كُلٌّ آَمَنَ بِاللَّهِ وَمَلَائِكَتِهِ وَكُتُبِهِ وَرُسُلِهِ لَا نُفَرِّقُ بَيْنَ أَحَدٍ مِنْ رُسُلِهِ وَقَالُوا سَمِعْنَا وَأَطَعْنَا غُفْرَانَكَ رَبَّنَا وَإِلَيْكَ الْمَصِيرُ
‘রাসূল তার নিকট তার রবের পক্ষ থেকে নাযিলকৃত বিষয়ের প্রতি ঈমান এনেছে, আর মুমিনগণও। প্রত্যেকে ঈমান এনেছে আল্লাহর উপর, তাঁর ফেরেশতাকুল, কিতাবসমূহ ও তাঁর রাসূলগণের উপর, আমরা তাঁর রাসূলগণের কারও মধ্যে তারতম্য করি না। আর তারা বলে, আমরা শুনলাম এবং মানলাম। হে আমাদের রব! আমরা আপনারই ক্ষমা প্রার্থনা করি, আর আপনার দিকেই প্রত্যাবর্তনস্থল’ -(সূরা আল বাকারা : ২৮৫)

তিনি অন্য এক আয়াতে বলেন ,
يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آَمَنُوا آَمِنُوا بِاللَّهِ وَرَسُولِهِ وَالْكِتَابِ الَّذِي نَزَّلَ عَلَى رَسُولِهِ وَالْكِتَابِ الَّذِي أَنْزَلَ مِنْ قَبْلُ وَمَنْ يَكْفُرْ بِاللَّهِ وَمَلَائِكَتِهِ وَكُتُبِهِ وَرُسُلِهِ وَالْيَوْمِ الْآَخِرِ فَقَدْ ضَلَّ ضَلَالًا بَعِيدًا

‘হে মুমিনগণ, তোমরা ঈমান আন আল্লাহর প্রতি, তাঁর রাসূলের প্রতি এবং সে কিতাবের প্রতি যা তিনি তাঁর রাসূলের ওপর নাযিল করেছেন এবং সে কিতাবের প্রতি যা তিনি পূর্বে নাযিল করেছেন। আর যে আল্লাহ, তাঁর ফেরেশতাগণ, তাঁর কিতাবসমূহ, তাঁর রাসূলগণ এবং শেষ দিনকে অস্বীকার করবে, সে ঘোর বিভ্রান্তিতে বিভ্রান্ত হবে’ – (সূরা আন্-নিসা : ১৩৬)

তিনি আরও বলেন ,
لَيْسَ الْبِرَّ أَنْ تُوَلُّوا وُجُوهَكُمْ قِبَلَ الْمَشْرِقِ وَالْمَغْرِبِ وَلَكِنَّ الْبِرَّ مَنْ آَمَنَ بِاللَّهِ وَالْيَوْمِ الْآَخِرِ وَالْمَلَائِكَةِ وَالْكِتَابِ وَالنَّبِيِّينَ

‘ভালো কাজ এটা নয় যে, তোমরা তোমাদের চেহারা পূর্ব ও পশ্চিম দিকে ফিরাবে; বরং ভালো কাজ হলো যে ঈমান আনে আল্লাহ, শেষ দিবস, ফেরেশতাগণ, কিতাব ও নবীগণের প্রতি’ – (সূরা আল-বাকারা : ১৭৭)

প্রসিদ্ধ হাদিসে জিবরিল অনুযায়ী,
জিবরীল আলাইহিস সালাম যখন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে জনৈক বেদুইন ব্যক্তির আকৃতি ধারণ করে এলেন এবং ইসলাম, ঈমান ও ইহ্সান সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলেন, তখন তিনি ঈমান সম্পর্কে বলেছেন , أن تؤمن بالله وملائكته وكتبه ورسله واليوم الآخر، وتؤمن بالقدر خيره وشره. অর্থাৎ ‘তুমি ঈমান আনবে আল্লাহর প্রতি, তাঁর ফেরেশতাগণ, তাঁর কিতাবসমূহ, তাঁর রাসূলগণ ও পরকালের প্রতি এবং ঈমান আনবে ভাগ্যের ভালোমন্দের প্রতি।’ এ ছয়টি বিষয় হলো ঈমানের আরকান। এ গুলো হলো মৌলনীতি যা দিয়ে রাসূলগণকে (আলাইহিমুস্সালাম) পাঠানো হয়েছে।এবং আসমানি কিতাব নাযিল করা হয়েছে। এ ছয়টি বিষয়ের সবকটিতে যদি কেউ ঈমান না আনে, তবে তার ঈমান পূর্ণাঙ্গ হবে না। আর এ ঈমান হতে হবে ঠিক সেভাবে যেভাবে আল্লাহর কিতাব ও তাঁর রাসূলের সুন্নতে বর্ণিত হয়েছে। যে ব্যক্তি এসবের কোনো একটি অস্বীকার করবে, সে ঈমানের সীমানা থেকে বের হয়ে যাবে এবং কাফেরদের দলভুক্ত হয়ে পড়বে।

মূল : ড. মুহাম্মাদ নাঈম ইয়াসিন বাংলা অনুবাদ : ড. মাওলানা শামসুল হক সিদ্দিক

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Close Menu